অনেক চেষ্টাতেও ওজন কমছে না? ভুল হচ্ছে কোথায় জেনে নিন

0
9

বর্তমান যুগটা মানুষকে ভীষণ অলস করে তুলছে। ক্ষিদা লেগেছে কি করা যায় ? মুহূর্তে অনেকের ভাবনায় চলে আসে খাবার ডেলিভেরি কোম্পানি গুলার কথা। দিয়ে দেওয়া হলো অর্ডার আর খাবার চলে আসলো ঘরে। এতে কি হলো আপনি যেখানে বসে আছেন ঐখানে বসেই পেয়ে গেলেন আপনার পছন্দের খাবার। আবার দেখুন আপনার বিদ্যুৎ বিল বা অন্য কোনো বিল পরিশোধ করতে হবে। আপনি কি করলেন ঘরে বসেই নিজের মোবাইল ফোনটি দিয়ে বিল পরিশোধ করে দিলেন। সর্বোপরি আমাদের প্রতিদিনের কাজের অনেক কাজকেই হাতের মুঠোয় এনে দিলো আজকের এই ডিজিটাল যুগটা। যার ফলে মানুষের মুটিয়ে যাওয়া সহ নানান রোগ দেখা যায়। কিন্তু তাতে কি আমরা মানুষেরা যেমন নিজেদেরকে এমন অবস্থা সৃষ্টি করি ঠিক তেমনি এই অবস্থা থেকে উত্তরণের চেষ্টাও করি ও সফল হই।

এখন কথা হচ্ছে এইযে আমরা ওজন কমানোর জন্য অনেক চেষ্টা করেও অনেক সময় ফল পাচ্ছিনা এর কারণ একবার ভেবে দেখেছি। আমাদের রুটিনে কোনো ভুল হচ্ছেনাতো? তাহলে দেখে নিন কোথায় কোথায় ভুল থেকে যাচ্ছে –

প্রোটিনের ঘাটতি হচ্ছে আপনার

প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার আপনার মেটাবলিজম বা বিপাকের হার বাড়িয়ে দেয়। সারাদিনে আপনি প্রোটিন যত বেশি খাবেন, স্বাভাবিকভাবেই ক্যালোরিযুক্ত খাবারের পরিমাণ কমতে থাকবে। নানা সমীক্ষাতেও দেখা গিয়েছে যারা সকালের ব্রেকফাস্টে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খান, তাঁদের সারা দিনে খিদে কম পায়।

প্রসেসড ফুড বেশি খাচ্ছেন

খাঁটি সিঙ্গল ইনগ্রেডিয়েন্টস দিয়ে তৈরি খাবার বেশি খান। ফ্রোজেন আইটেম আপনার শরীরের পক্ষে আসলে ভালো নয়।

চিনি খাওয়া কমাতে পারেননি মোটেও

কোল্ড ড্রিঙ্ক, চিনি দেওয়া চা-কফি, শর্করা জাতীয় পানীয় খেলে ক্যালোরি বাড়তে বাধ্য। হাজার চেষ্টার পরেও কমবে না ওজন। পারলে দোকানের ফ্রুট জুস অথবা প্যাকেটের ফ্রুট জুস খাওয়াও বন্ধ করুন। সারা দিনের ক্যালোরি ইনটেক অনেকটা কমে যাবে এক ধাক্কায়।

পর্যাপ্ত ঘুম হচ্ছে না আপনার

ওজন ঝরানোর জন্য ৬ থেকে ৭ ঘন্টা গভীর ঘুমের দরকার। ঘুমের ব্যাঘাত কিন্তু ওবেসিটির অন্যতম কারণ।

ডায়েট থেকে কার্বোহাইড্রেট আদৌ কমাতে পারেননি আপনি

অনেকেরই একটা ভুল ধারণা থাকে, কেবল ফ্যাট জাতীয় খাবারেই ফ্যাট থাকে। তা কিন্তু নয়, কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবারে প্রচুর পরিমাণে ক্যালোরি থাকে। তাই অনেক চেষ্টার পরেও ওজন না কমলে একবার লো-কার্ব ডায়েট অনুসরণের চেষ্টা করুন।

LEAVE A REPLY