মেদ কমাতে খাওয়ার সময় কিছু নিয়ম মেনে চলুন

0
173

বর্তমানে হাজার হাজার মানুষ বাড়তি ওজন নিয়ে প্রচুর শংকায় ভোগেন। দেহের স্থূলতার কারণে অনেকে অবমূল্যায়িতও হন। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ওজনহীনতায় ভোগা মানুষের থেকে ওজনস্থূলতার হার বেশি। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে ডায়েট এবং শরীরচর্চার দিকে বেশিরভাগ মানুষের নজর থাকে। এসব নিয়মের সঙ্গে আরও কিছু কৌশল রপ্ত করতে পারলে মেদ ঝরানোর কাজ অনেকটা সহজ হয়।

কথায় বলে, ‘চ্যারিটি বিগিনস অ্যাট হোম’। মেদ ঝরানোর অভ্যাসটাও অনেকটাই তাই, বাড়ি থেকেই শুরু হোক সেই পাঠ।

অন্যান্য কৌশলের মধ্যে খাওয়ার প্রবণতা কমানো অন্যতম। এই অভ্যাস রপ্ত করতে পারলে অনেকটা ওজন কমবে। সেটা কীভাবে সম্ভব? রইল তেমন কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি।

কাঁটা চামচ ও চামচ দু’টো দিয়েই খাওয়া যায় এমন খাবারের জন্য কাঁটা চামচ ব্যবহার করুন। গঠনগত কারণে চামচের তুলনায় কাঁটা চামচে খাবার কম পরিমাণে ওঠে। বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণ হয়েছে, কাঁটা চামচে খেলে কম পরিমাণে খাবার খাওয়া হয়।

Image result for drinking water

খাওয়ার আগে পানি খান। এতে বেশি খাবার খাওয়ার ইচ্ছা থাকবে না।

রেস্তোরাঁয় অর্ডার করার সময় বা বাড়িতেও খাবাব বাড়ার সময় অল্প করেই নিন প্রথমে। তা শেষ হওয়ার পরেও খিদে থাকলে তবেই খান।

খাবারের প্লেটের আয়তন ছোট করুন। কম খাবার ধরে এমন প্লেটে খাবার খেলে স্বাভাবিকভাবেই কম পরিমাণ খাবার খেতে পারবেন।

খাওয়ার শেষে ডেজার্ট খাওয়ার অভ্যাস বাদ দিন। এতে ডেজার্ট শরীরের যা যা ক্ষতি করে তা থেকেও শরীর বাঁচবে আবার মিষ্টি থেকে হওয়া ফ্যাটও আটকানো যাবে।

অনেকক্ষণ খিদে চেপে রাখলেই খাওয়ার সময় বেশি খেয়ে ফেলার সুযোগ থাকে। তাই তিন-চার ঘণ্টা অন্তর অল্প অল্প করে খেয়ে পেট ভরিয়ে রাখুন।

রাতে আর স্ন্যাক্স করার অভ্যাস ত্যাগ করুন। ঘুমনোর তিন ঘণ্টা আগেই খাওয়া সেরে ফেলুন। এতে শরীর হজম করার সুযোগ পাবে।

খাবার কম খেতে হবে। তবে কখনও ভুলেও কোনও বেলার খাবার বাদ দেবেন না। বরং খাবার বাদ দিলে খালি পেটে থাকায় ওজন আরও বেশি বাড়ে।কাজেই, খেতে হবে এবং তা পরিমিত হারে।

LEAVE A REPLY