গাইবান্ধা-৩ উপ-নির্বাচনে সক্রিয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা

0
200

গাইবান্ধা-৩ (পলাশবাড়ী- সাদুল্লাপুর) সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনের হাওয়া বইছে। ৮ লক্ষাধিক ভোটারের এই আসনে মনোনয়ন পেতে বিএনপি-জাপা-জাসদসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দলেরও প্রায় অর্ধডজন নেতা সক্রিয় রয়েছেন।

গত ২৭ ডিসেম্বর গাইবান্ধা-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডা. ইউনুস আলী সরকার মারা গেলে নির্বাচন কমিশন এই আসনটি শূন্য ঘোষণা করে। ঢাকা-১০ ও বাগেরহাট-৪ সংসদীয় আসনসহ গাইবান্ধা-৩ আসনে মার্চের ২১ তারিখে উপ-নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করে গত ৬ জানুয়ারী নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করে। তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৯ ফেব্রুয়ারি, মনোনয়ন প্রত্যাহারের সময়সীমা ২৯ ফেব্রুয়ারি এবং ১ মার্চ প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ করা হবে।

তফসিল ঘোষণার পর দলীয় মনোনয়ন পেতে জোর তদবির শুরু করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের এক ডজনেরও বেশি নেতা। প্রার্থীরা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য সর্বশক্তি নিয়োগ করেছেন। রাত-দিন একাকার করে দৌঁড়ঝাপ করছেন। পাশাপাশি নিজের ও দলের অবস্থান জানান দিতে বিভিন্ন স্থানে সভা-সমাবেশ করছেন, তাদের পোস্টার-ফেস্টুনে ছেঁয়ে গেছে পুরো নির্বাচনী এলাকা। একইভাবে তাদের কর্মী-সমর্থকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজ নিজ প্রার্থীর সরব রয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মাহমুদুল হক, বাংলাদেশ কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি, সদ্য প্রয়াত সংসদ সদস্য ডা. ইউনুস আলী সরকারের ছেলে ড. ফয়সাল ইউনুস, পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু বক্কর প্রধান, পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, সাদুল্ল্যাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহারিয়ার খান বিপ্লব, আজিজুর রহমান বিএসসি, মেজর (অব.) মফিজুল ইসলামসহ এই পর্যন্ত ১৩ জন আওয়ামী লীগ নেতা ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন পেতে দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছেন।

মনোনয়নের বিষয়ে সকল সিদ্ধান্ত নির্ভর করছে দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের ওপর। চূড়ান্ত প্রার্থী নির্বাচনের জন্য আগামী ১৪ তারিখের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বলেও সূত্র জানান।

অপরদিকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট এবং জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাপা’র(এরশাদ) মনোনয়ন পেতে একাধিক প্রার্থী সক্রিয় থাকলেও জেলা বিএনপি’র সভাপতি ডা. মঈনুল হোসাইন সাদিক এবং জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার ব্যারিস্টার দিলারা খন্দকার শিল্পী সংশ্লিষ্ট দল ও জোটের মনোনয়ন যে পাচ্ছেন তা একপ্রকার নিশ্চিত।

LEAVE A REPLY