২০২০-২১ অর্থবছরের ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট পেশ

0
65

জাতীয় সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।  এবারে ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেটে বৈশ্বিক মাহামারির মধ্যেও প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮.২ শতাংশ, জিডিপির আকার ধরা হয়েছে ৩১ লাখ ৭১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা। 

কোভিডের কারণে আগামী বাজেটে বাস্তবায়ন খুব সহজ হবেনা মনে করা হচ্ছে। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমরা পুরোপুরি আত্মপ্রত্যয়ী ছিলাম যে এ বছর আমাদের অর্থনীতিতে সেরা প্রবৃদ্ধিটি উপহার দিতে পারব। আমাদের ইপ্সিত লক্ষ্যমাত্রাটি ছিল ৮ দশমিক ২ থেকে ৮ দশমিক ৩ ভাগ।

বিশাল অঙ্কের এই বাজেটে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৮২ হাজার ১৬ কোটি টাকা। এই বাজেটে মোট ঘাটতির পরিমাণ এক লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা। যা মোট জিডিপির ছয় শতাংশ। প্রায় দুই লাখ কোটি টাকার এই বিশাল অঙ্কের ঘাটতি পূরণে সরকার সঞ্চয়পত্র থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা নেবে আর অন্যান্য ব্যাংকবহির্ভূত খাত থেকে ৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার চিন্তা করা হয়েছে।।

নতুন অর্থবছরে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে সরকার এক লাখ ৯ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। এরমধ্যে ব্যাংক খাত থেকে ৮৪ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকার বিশাল আকারের এই ঋণ নেবে। ব্যাংক থেকে দীর্ঘমেয়াদি হিসেবে ঋণের পরিমাণ থাকবে ৫৩ হাজার ৬৫৪ কোটি টাকা, আর স্বল্পমেয়াদি ঋণ থাকবে ৩১ হাজার ৩২৬ কোটি টাকা।

শিক্ষা খাতে বিদায়ী অর্থবছরের চেয়ে আসন্ন অর্থবছরে ৫ হাজার ২৮৭ কোটি টাকা বেশি বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। এবারের বাজেটে নতুন হিসেবে করোনাভাইরাসজনিত ছুটির ক্ষতি পুষিয়ে পাঠ্যক্রমের ধারাবাহিকতা রক্ষার উদ্যোগের কথা বলা হয়েছে। আর এ জন্য প্রয়োজনীয় সম্পদের জোগান রাখার কথা বলেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বৃহস্পতিবার বিকেল তিনটায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হওয়ার পর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বাজেট বক্তব্য শুরু করেন। এসময় অর্থমন্ত্রী বাজেট বক্তব্যের কিছু অংশ পঠিত বলে গণ্য করার অনুরোধ জানালে স্পিকার অনুমতি দেন। বাজেট বক্তব্যের দুটি অংশ ডিজিটাল পদ্ধতিতে উপস্থাপন করছেন অর্থমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বেশ কয়েকজন মন্ত্রী সংসদ কক্ষে বাজেট অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় বিরোধীদলীয় নেত্রী রওশন এরশাদ  যোগ দেননি। সংসদ অধিবেশন কক্ষের ভেতরে স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য সাময়িকভাবে আসন বিন্যাসেও পরিবর্তন আনা হয়। ফাঁকা ছিল বেশ কিছু আসন।

LEAVE A REPLY